সর্বশেষরাজনীতি

চুপচাপ বসে না থেকে উঠে দাঁড়ানোর আহ্বান চরমোনাইয়ের পীরের

উঠে দাঁড়ানোর আহ্বান চরমোনাইয়ের পীরের

বর্তমান সরকার দুর্নীতির টাকায় বিরক্ত হয়ে নিজেকে সিংহের মতো ভাবছে বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী আন্দোলনের আমীর সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম।

চুপচাপ

চুপচাপ বসে না থেকে উঠে দাঁড়ানোর আহ্বান চরমোনাইয়ের পীরের বর্তমান সরকার জনগণের কথা চিন্তা করে না বলে দাবি করেন তিনি। এই সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দিলে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন জাতীয় সরকারের অধীনে হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। শুক্রবার বিকেলে ঢাকার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে অনুষ্ঠিত ছাত্র-যুবকদের সমাবেশে চরমোনাইয়ের পীর সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম এসব কথা বলেন। ইসলামী ছাত্র আন্দোলন ও যুব আন্দোলন যৌথভাবে এই সমাবেশের আয়োজন করে।

সৈয়দ রেজাউল করিম চুপচাপ বসে না থেকে উঠে দাঁড়ানোর আহ্বান চরমোনাইয়ের পীরের এই সমাবেশ থেকে অন্যান্য দলকে নীরব না বসে সরকারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান। তিনি বলেন, আমরা নীরব থাকলে একদিন আমাদের মাতৃভূমি বাংলাদেশ তার স্বাধীনতা হারাবে এবং আমাদের ইসলাম ধ্বংস হয়ে যাবে।

সমাবেশে সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, চুপচাপ বসে না থেকে উঠে দাঁড়ানোর আহ্বান চরমোনাইয়ের পীরের।

‘জঙ্গলে বাঘ যখন গর্জন করে তখন মনে হয় সামনে কেউ নেই। কিন্তু দুর্বল প্রাণীরা একত্রিত হয়ে বাঘের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়লে বাঘও পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়।

এই সমাবেশ থেকে সৈয়দ রেজাউল করিম চুপচাপ বসে না থেকে উঠে দাঁড়ানোর আহ্বান চরমোনাইয়ের পীরের না থেকে ২৭ অক্টোবর সব জেলা ও শহরে প্রতিবাদ মিছিল এবং ৩ নভেম্বর ঢাকায় গণসমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করেন। তাদের দাবির মধ্যে রয়েছে সংসদ ভেঙে দেওয়া এবং জাতীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠান, সংখ্যাগত আনুপাতিক নির্বাচন ব্যবস্থা প্রবর্তন এবং বর্তমান নির্বাচন কমিশনের বিলুপ্তি।

এই সমাবেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদিরের বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে চরমোনাইয়ের পীর সৈয়দ রেজাউল করিম বলেন, চুপচাপ বসে না থেকে ‘আপনারা বলেছেন, দিল্লি আছে, তাই আমরা আছি।’ আপনারা কি বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে মানি না? এই বক্তব্যের মাধ্যমে আপনি বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষকে অপমান করেছেন, বাংলাদেশকে পরাধীন করে দিয়েছেন। জনগণ এ স্বপ্ন পূরণ হতে দেবে না।

চুপচাপ

চরমোনাইয়ের পীর সৈয়দ রেজাউল করিমও প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেন,

চুপচাপ বসে না থেকে উঠে দাঁড়ানোর আহ্বান চরমোনাইয়ের পীরের বাড়াবাড়ি করলে সব বন্ধ করে দেব। তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনগণের কষ্টার্জিত অর্থে দেশের উন্নয়ন হয়েছে। আর উন্নয়নের নামে যা হয়েছে সবই বাংলাদেশের মানুষ দেখেছে। যেখানে 10 টাকা প্রয়োজন, সরকারী স্পনসররা 100 টাকা হিসাবে খরচ দেখায়। এর হিসাব জনগণকে দিতে হবে।

চুপচাপ বসে না থেকে সমাবেশে ইসলামী আন্দোলনের সহ-সভাপতি আমীর সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করিম বলেন, “2014 সালের নির্বাচন একটি প্রহসন ছিল।” 2018 সালের নির্বাচন ছিল ডাকাতদের নির্বাচন। আগামী নির্বাচন এই সরকারের অধীনে হবে না।

আগামী নির্বাচনকে নোংরা নির্বাচন হতে দেব নাচুপচাপ বসে না থেকে উঠে দাঁড়ানোর আহ্বান চরমোনাইয়ের পীরের। দিল্লির দাসত্ব আমরা মেনে নেব না।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলনের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মুহাম্মদ মোসাদ্দেক বিল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক ইউনুছ আহমদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য আশরাফ আলী আকন, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গাজী আতাউর রহমান, সহ-সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ আলম, বিএনপি’র জাতীয়তাবাদী যুবদলের সভাপতি মো. সুলতান সমাবেশে ছাত্রদলের সালাউদ্দিন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ইসলামী যুব আন্দোলনের সভাপতি মুহাম্মদ নেছার উদ্দিন। চুপচাপ বসে না থেকে  সমাবেশের উদ্বোধন করেন ইসলামী ছাত্র আন্দোলনের সভাপতি শরিফুল ইসলাম।

আরও পড়ুন

মামুনুল হকসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে তিন দিনের কর্মসূচি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button