সর্বশেষআঞ্চলিক

ছাড়ছে দূরপাল্লার বাস বিকেল থেকে টিকিট বিক্রি শুরু

সকাল থেকে বন্ধ ছিল দূরপাল্লার বাস। যাত্রী না থাকায় টিকিট কাউন্টারগুলোও রাখা হয়েছিল বন্ধ।

বাস
দুই দিন পর দূরপাল্লার বাস ছাড়ছে। দেশের বিভিন্ন এলাকায় যাওয়ার উদ্দেশে ঢাকার গাবতলীর বাস টার্মিনালের টিকিট কাউন্টারে আসেন লোকজন। আজ সোমবার বিকেল ৩টার দিকে

তবে বিকেলের দিকে টার্মিনালে যাত্রীদের উপস্থিতি দেখা গেছে। গাড়ি ছাড়ার উদ্দেশ্যে টিকিটও কিনতে শুরু করেছেন দূরপাল্লার বিভিন্ন গন্তব্যের গাড়ি কোম্পানির পরবর্তীরা। কিছু দূরপাল্লার গাড়ি গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যেতে দেখা গেছে।

আজ সোমবার সকালের গাবতলী ও মহাখালী আন্তজেলা টার্মিলে গিয়ে এমন চিত্র দেখা গেছে। এর আগে লামিন গামবতলি টার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার কোনো বাসতে দেখা যায়। আর মহালীখা তার্মিনাল থেকে শুধু এনা এর ঢাকা-ময়মনসিংহ রুটের গাড়ি করতে দেখা গেছে।

এই টার্মিনাল থেকে অন্য কোনো কোম্পানির গাড়িস্থান।বেলা তিনটার গাবতলীত টামিনালে গিয়ে দেখা যায়, টার্মিনালেদের উপস্থিতি মোটামুটি রয়েছে। সাধারণ করে, টার্মিনালে আগামীকাল টিকিটের খোঁজ করছেন। সামরিক শ্রমিক তারা টার্মিনালে কোন বিষয়ে জানতে পারবে। গাড়ি ও গানের নাম বলে ডাকাডাকি করা হচ্ছে।

বাস
গাবতলীতে যাত্রী এলেই এগিয়ে যাচ্ছেন বাস কোম্পানির লোকজন

বেলা সোয়া তিনটার দিকে হানিফ এন্টারপ্রজেসের কোনো দিন ছাড়া কোনো গাড়ি হয়নি। দিন চারে প্রথম গাড়ি ছাড়া হবে। গাড়িটি খুলনা যাবে। টাক টেবিল বাসের ১৪টি মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। আর সপ্তাহের পাঁচটার গাড়ির জন্য টিকিট কেনা হয়েছে। রাতচি সাতটি গাড়ি ছাড়ার সুত্র আছে। একাকী সব কটি ছাড়া হবে।গাবতলী করতে এলেই এগিয়ে যাচ্ছে কোম্পানির মালিক

গাবতলীতে শ্যামলী এন আর ট্রাভেলসের কাউন্টার মাস্টার আমিনুল ইসলাম বলেন, প্রতিবাদে গিয়ে সব কোম্পানির টিকিট ডিসকাউন্ট দেখা গেছে। সাধারণরা কমপ্লেক্স করে খাতা-কলম আর টিকিট নিয়ে বিক্রির জন্য প্রস্তুত ছিলেন। কিছু পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করার কথা বলা হয়েছে।

গাবতলী শ্যামলী এন আর ট্রাভেলসের ডিসকাউন্ট আমিনুল ইসলাম বলেন, কিছু কিছু টিকিটের ছাড়া কি না, কখনই দেখাবে, টিকিট কেনা হচ্ছে না—এসব খোঁজ করছে। কিন্তু শরণাপন্ন হওয়ার মতো পর্যাপ্ত পাওয়া যাবে কি না, তা এখনও হচ্ছে না। তবে আগামী ৫টা সন্ধ্যা থেকে ৬টার মধ্যে গাড়ির উদ্দেশ্যে টিকিট ছাড়া করা হয়েছে। যাঁরা জাতিকে বলেছেন, সেখানে বলা হয়েছে, না হলে গাড়ি করবে না।

টিকলি বেলা তিনটার দিকে মহাখা টার্মিনা দূরপাল্লার বিভিন্ন গন্তব্য গাড়ির টিকিট করা হয়। টার্মিনাল যে অংশ দিয়ে গাড়ি ছেড়ে যায়, সেই অংশে বাসস্থান ছেড়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে তাদের অপেক্ষায় থাকা অবস্থায় দেখা গেছে। এ ছাড়া পৌনে চারটা থেকে চারটার এনা ও মাদারগঞ্জ উপজেলার মধ্যে গাড়ি ছেড়ে গেছে।

বেলা ৩টা ৫০ মিনিটে মহাখালী থেকে ছেড়ে যায় জামালপুর মাদারগঞ্জগামী মাদারগঞ্জ স্পেশাল একটি গাড়ি। বাসস্থান ছিল মাত্র ৬ জন।গাড়ির চালক মো. সোলায়মান বলেন, রাত দিন গাড়ি ছিল। উত্তরে সাধারণ অবস্থান। তাই না থেকে রওনা যোগ। রাস্তা থেকে কিছু পরিমাণ মূল্য উঠবে।

এ সময় নেত্রকোনার নলছাপড়াগামী এস এস ট্রাভেলস, টাঙ্গাইলে মধুপুর-জামালপুরের ধনগামী ব্যবহারকারী, ময়মনসিংহের হালুয়াগামী শ্যামলী বাংলা, ময়মনসিংহগামী সৌখিন এক্সপ্রেস গাড়িগুলো ছাড়া উদ্দেশ্যে প্রস্তুত দেখা যায়। একমাত্র বাসস্থানের কর্মীরা ছিলেন কোনো ব্যক্তিকে আমি ডাকাডাকি করে জানতে চাই।

আরও পড়ুন

উত্তরা থেকে মতিঝিল মেট্রোরেলে মাত্র ৩২ মিনিট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button